কয়েন বার্ন কি?

কয়েন বার্ন প্রসেসটা হচ্ছে এমন একটি প্রসেস যা সরকুলেটিং সাপ্লাই থেকে বার্ন কৃত টোকেন সম্পূর্ন রূপে রিমুভ করা হয়। সেই সাথে টোটাল সাপ্লাইও কমিয়ে আনা হয়। সকল প্রযেক্টের বার্নিংয়ের একই উদ্দেশ্য থাকে। আর তা হচ্ছে টোটাল টোকেনের পরিমান কমিয়ে আনা।

আমরা বার্নিংয়ের সম্পূর্ণ বিষয়টি আলোচনা করার জন্য যেকোন একটি প্রযেক্টের বার্নিংয়ের প্রসেস নিয়ে আলোচনা করতে পারি। আর এই আলোচনার জন্য আমি BNB এর বার্নিং প্রসেসকে উদাহরন হিসেবে ব্যবহার করবো।

BNB এর টোটাল সাপ্লাই ছিলো 200,000,000 BNB। বর্তমানে এর টোটাল সাপ্লাই হচ্ছে 176,406,561 BNB এবং সারকুলেটিং সাপ্লাই 144,406,560 BNB। অর্থাৎ এখন পর্যন্ত মোট ১২ বার বার্নিংয়ের দ্বারা 23,593,439 BNB বার্ন করা হয়েছে।

binance_ref_banner

এই বার্নিং প্রসেস প্রতি ৩ মাস পর পর করা হয় যা পূর্বেই তাদের হোয়াইট পেপারে উল্লেক্ষ করা হয়েছিলো। আর বাইন্যান্স তাদের এই বার্নিং প্রসেস ততদিন পর্যন্ত চালিয়ে যাবে যতক্ষন তাদের টোটাল সাপ্লাই 100,000,000 BNB না পৌছাই। অর্থাৎ তাদের মোট সাপ্লাইয়ের ৫০% কয়েন বার্ন করা হবে।

কয়েন বার্ন কি?

যে সকল প্রযেক্ট তাদের বার্নিং প্রসেস রেখে থাকে, তারা কিভাবে এবং কত দিন পরপর তাদের টোকেন বার্ন করবে, সাধারনত তা তাদের হোয়াইট পেপারে উল্লেক্ষ থাকে।

অনেকের কাছে হয়তো বিষয়টি পরিস্কার নই যে, কয়েন বা টোকেন বার্ন কিভাবে কাজ করে। তো চলুন জানার চেষ্টা করি বার্নিং কিভাবে কাজ করে।

আরো পড়ুন: NFT বা নন-ফানজিবল টোকেন কি?

কিভাবে কয়েন বা টোকেন বার্ন কাজ করে?

প্রথমত, বিষয়টি সম্পূর্ণটাই ফাংশন ভিত্তিক। তাই একজন কয়েন হোল্ডার নির্দিষ্ট পরিমান কয়েন বা টোকেন বার্ন করার জন্য বার্ন ফাংশন কল করে।

দ্বিতীয়ত, ফাংশন কল করার পর সেই কলটি BNB কন্ট্রাক্ট এ্যড্রেস ভ্যরিফাই করে। আর দেখে যে, যেই পরিমান কয়েন/টোকেন বার্নের জন্য কলটি করা হয়েছে সেই পরিমান কয়েন সেই ওয়ালেটে আছে কি না?

তৃতীয়ত্ব, যদি সেই ওয়ালেটে পর্যাপ্ত পরিমান কয়েন না থাকে তবে, কলটি ইনভ্যলিড হয়ে যায়। আর সেই বার্ন ফাংশনটি এক্সিকিউট হয় না।

চতুর্থ, আর যদি সেই ওয়ালেটে পর্যাপ্ত পরিমান কয়েন থাকে তবে ফাংশনটি এক্সিকিউট হয়। এর ফলে যেই পরিমান কয়েন/টোকেন বার্ন করার জন্য কল করা হয়েছিলো তা বিয়োগ করা হয়। আর সর্বশেষে কন্ট্রাক্ট এ্যড্রেস আপডেট করা হয়।

যদি একবার বার্ন ফাংশন এক্সিকিউট হয় কয়েন বা টোকেন বার্ন করার জন্য; তবে যেই পরিমান কয়েন বো টোকেন বার্ন করা হয়, সেই কয়েন বা টোকেন চিরতরে বাতিল হয়ে যায়। সেই কয়েন বা টোকেন আর কোন ভাবেই ফিরে আনার পথ নেই।

অপরপক্ষে, BNB তে যে বার্ন ফাংশন রয়েছে তা যে কেউ ব্যবহার করে যে কোন সময় নিজের ওয়ালেট থেকে বার্ন করতে পারেন। যে কেউ এই ফাংশন ব্যবহার করে বার্ন করলে যে পরিমান কয়েন বার্ন করবে তা সারকুলেশন ফাংশন থেকে রিমুভ হয়ে যাবে। আর যে কেউ তা ভ্যরিফাই করতে পারেন। অর্থাৎ সকলেই দেখতে পারবেন কত পরিমান বার্ন করা হয়েছে।

কয়েন বা টোকেন বার্নের ফলাফল

আমরা উপরের আলোচনা থেকে বুঝতে পারলাম, যে পরিমান কয়েন বা টোকেন বার্ন করা হয় তা চিরতরে সারকুলেশন সাপ্লাই থেকে বাদ চলে যায়। অপরদিকে টোটাল সাপ্লাইও আপডেট করা হয় এবং সেখান থেকেও তা বাদ দেওয়া হয়।

অর্থাৎ সহজ কথাই যে পরিমান বার্ন করা হয় তা সেই কয়েনের মোট পরিমান থেকে চিরতরে বাদ হয়ে যায়। যা কখনো আর ফিরে পাওয়া সম্ভব হয় না। আর যখন কোন কয়েনের সারকুলেশন সাপ্লাই, টোটাল সাপ্লাই বর্তমান সাপ্লাই থেকে কমে যায় তখন সহজেই অনুমান করা যায় সেই কয়েনের ভ্যলু বাড়তে পারে।

কারন ডিমান্ড অনুযায়ী যখন সাপ্লাই কম হবে তখন স্বাভাবিক কারনেই এমন হওয়াটা খুবই স্বাভাবিক।

তো বোঝাই যাচ্ছে যে, কোন কয়েন বা টোকেন বার্ন করা হলে; তা, সেই কয়েন বা টোকেন হোল্ডারদের জন্য বেশ পজেটিভ একটি বিষয়।

উদাহরন সরূপ BNB এর দিকে লক্ষ করলেই দেখা যায়। BNB যেহেতু তাদের মোট সাপ্লাইয়ের ৫০% কয়েনই বার্ন করবে। অর্থাৎ ২০০ মিলিয়ন কয়েন এর মধ্যে ১০০ মিলিয়ন বার্ন করবে। সেহেতু আশা করা যায় এর সেই পর্যন্ত যেতে যেতে এর দাম খুব ভাল পর্যায়ে চলে যাবে (একান্তই ব্যক্তিগত মতামত)।

বি.দ্র:- কয়েন বা টোকেন নিজ দ্বায়িত্বে ট্রেড করবেন।

এছাড়া ক্রিপ্টোকারেন্সি নিয়ে অন্য যেকোন ধরনের আলোচনা করার জন্য বাংলাদেশ ক্রিপ্টো কমিউনিটিতে যোগ হয়ে থাকতে পারেন: https://t.me/Bangla_Cryptocurrency

আর বাইন্যান্স সম্পর্কিত আলোচনার জন্য আমাদের বাংলাদেশ বাইন্যান্স কমিউনিটিতে যোগ হতে পারেন: https://t.me/BinanceBangladeshi

সতর্কতাঃ- ফরেক্স ও ক্রিপ্টোকারেন্সি মার্কেট অধিক ভলটালিটির কারনে ট্রেডিং করা অনেক বেশি বিপদজনক। তাই এই পোষ্টে কাউকে এই মার্কেটে ট্রেড করার জন্য উৎসাহিত করা হচ্ছে না। যদি কেউ ট্রেড করতে চাই, তবে তা সে নিজের দায়িত্বে করবে, এর জন্য এই ব্লগের কর্তৃপক্ষ দায়বদ্ধ থাকবে না।

মন্তব্য