মাল্টিসিঙ্গনেচার ওয়ালেট কি?

মাল্টিসিঙ্গনেচার এর বাংলা আভিধানিক অর্থ দাড়ায় একের অধিক সাক্ষর। জি হ্যাঁ, মাল্টিসিঙ্গনেচার ওয়ালেট বলতেই তাকেই বুঝানো হয় যে ওয়ালেটে এক্সেস করার জন্য একাধিক ইউজারের ডিজিটাল সিঙ্গনেচারের প্রয়োজন হয়। এই ডিজিটাল মাল্টিসিঙ্গনেচারের ব্যবহার আগে থেকে থাকলেও এর প্রকৃত ব্যবহার দেখা যায় ক্রিপ্টোকারেন্সি জগতে।

মাল্টিসিঙ্গনেচার ওয়ালেট কি?

ক্রিপ্টোকারেন্সি জগতে সর্বপ্রথম ২০১২ সালে বিটকয়েন ওয়ালেটের সুরক্ষার জন্য মাল্টিসিঙ্গনেচার ব্যবহার হয়েছিলো। মাল্টিসিঙ্গনেচার বিভিন্ন করানে ব্যবহার হয়ে থাকলেও এর মূল ব্যবহার সিকিউরিটি ইসুতে অধিক ব্যবহার করা হয়। তো চলুন জেনেনি ক্রিপ্টোকারেন্সিতে কিভাবে মাল্টিসিঙ্গনেচার ব্যবহার করা হয়।

মাল্টিসিঙ্গনেচার কিভাবে কাজ করে?

চলুন ছোট্ট একটি উদাহরন দিয়ে মাল্টিসিঙ্গনেচার কিভাব কারে থাকে তা জানার চেষ্টা করি। আমরা হয়তো অনেকেই ব্যাংকের লকার দেখেছি। ব্যাংকের লকার গুলোতে একাধিক চাবি থাকে। বাদ দেন ব্যাংকের লকার। ধরুন আপনার কাছে একটি লকার আছে যার দুইটি চাবি আছে দুই রকম। অর্থাৎ আপনি যখন আপনার এই লকার খুলবেন তখন আপনার দুইটি চাবিই লাগবে। একটি চাবি হারিয়ে গেলে আপনি এই লকার খুলতে পারবেন না।

binance_ref_banner

বেসিক্যলি, মাল্টিসিঙ্গনেচার ঠিক এই ধরনেরই একটি সিকিউরিটি। আপনি যখন আপনার ওয়ালেটে এক্সেস করে কোন ট্রানজেকশন করতে চাইবেন তখন আপনার একের অধিক সিঙ্গনচার প্রয়োজন হবে। অর্থাৎ এই মাল্টসিঙ্গনেচার আপনার একাউন্টের অতিরিক্ত সিকিউরিটি দিয়ে থাকে।

আরো পড়ুন: কিভাবে ক্রিপ্টোকারেন্সি বাছায় করবেন?

সিংঙ্গেল Vs. মাল্টিসিঙ্গনেচার ওয়ালেট

সাধারনত, বিটকয়েন স্টোর করা হয় একটি সিংঙ্গল কি দিয়ে। অর্থাৎ এই প্রাইভেট কি যার কাছ থাকবে সে ব্যক্তি একাই সেই ওয়ালেট ফান্ড নিয়ন্ত্রন করতে পারবে। এখন যদি কোন ভাবে আপনার প্রাইভেট কি কারো হাতে পড়ে যায় তবে আপনি আপনার ফান্ড নিশ্চিত হারাবেন।

আর মাল্টিসিঙ্গনচার ওয়ালেটে কোন প্রকার লেনদেন করতে একের অধিক সিঙ্গনেচারের প্রয়োজন আছে। যার অর্থ দাড়ায় মাল্টিসিঙ্গনেচার ওয়ালেট থেকে একজন ব্যক্তি বা একটি মাত্র কি দিয়ে ফান্ড ট্রান্সফার করা যাবে না। চলুন বিষয়টি একটি উদাহরন দিয়ে আলোচনা করা যাক।

ধরুন, একট বিটকয়েন ওয়ালেটকে দুইটি “কি” দিয়ে বাইন্ডিং করা আছে। যার একট “কি” সেলিমের কাছে আছে এবং অপর “কি” টি তুহিনের কাছে আছে। এখন সেলিম যদি তুহিনকে না বল সেই ওয়ালেট থেকে কোন বিকয়েন ট্রান্সফার করার চেষ্টা করে তবে সে ট্রান্সফার করতে পারবে না। যদিও সে ওয়ালেট প্রবেশ করতে পারবে, কিন্তু যখন সে কোন বিটকয়েন ট্রান্সফার করতে যাবে তখন ওয়ালেটে তার কাছে দ্বিতীয় সিঙ্গনেচার চাইবে। অর্থাৎ তাকে তুহিনের কাছ থেকে দ্বিতীয় সিঙ্গনেচার না পেয়ে থাকলে সে কোন রকম বিটকয়েন ট্রানজেকশন করতে পারবে না।

অনুরূপ ভাবে, তুহিনও কোন প্রকার বিটকয়েন ট্রানজেকশন করতে পারবে না সেলিমের কাছ থেকে তার সিঙ্গনেচার না পেয়ে থাকলে। মোট কথা এই মাল্টিসঙ্গনেচার ওয়ালেট থেকে কোন প্রকার ট্রানজেকশন করতে হলে দুইজনেরই সম্মতি প্রয়োজন হবে।

সিকিউরিটি বৃদ্ধি করে

সিংঙ্গেল কি ওয়ালেটের চাইতে মাল্টিসিঙ্গনেচার ওয়ালেট অধিক নিরাপদ। কারন, কোন ভাবে কেউ যদি আপনার “সিংঙ্গেল কি” ওয়ালেটর “কি” পেয়ে যায় তবে, আপনি আপনার ফান্ড হারিয়ে ফেলবেন।

কিন্তু মাল্টিসিঙ্গনেচার ওয়ালেটের ক্ষেত্রে এমনটি হবার সম্ভাবনা নেই। কারণ কোন ভাবে কেউ যদি আপনার মাল্টিসিঙ্গনেচার ওয়ালেটের একটি “কি” পেয়েও থাকে, তবে সে আপনার ফান্ড চুরি করতে পারবে না। কারন, সে যখন আপনার ফান্ড ট্রান্সফার করতে যাবে তখন তার কাছে দ্বিতীয় “কি” চাইবে যা তার কাছে নেই।

মাল্টিসিঙ্গনেচার ওয়ালেট ব্যবহারে সতর্কতা

মাল্টিসিঙ্গনেচার ওয়ালেটে আপনি দুইয়ের অধিক সিঙ্গনেচনার তৈরি করতে পারবেন। তাই আপনি যদি মাল্টিসিঙ্গনেচার ওয়ালেট ব্যবহার করতে চার তবে, দুইয়ের অধিক সিঙ্গনেচারের ব্যবস্থা রাখবেন। কারন, আপনি যদি ২টি “সিঙ্গনেচার কি” দিয়ে ওয়ালেট তৈরি করেন তবে কোন কারনে আপনি যদি একটি “সিঙ্গনেচার কি” হারিয়ে ফেলেন তবে আপন আপনার ফান্ড হারাবেন। কারন দুইটি সিঙ্গনেচার ওয়ালেট বিশিষ্ট ওয়ালেট থেকে কোন প্রকার লেনদেন করতে চাইলে দুইটি সিঙ্গনেচারই প্রয়োজন হবে।

তাই মাল্টিসিঙ্গনেচার ওয়ালেট ব্যবহার করতে চাইলে দুইয়ের অধিক সিঙ্গনেচার ব্যবহার করবেন। তাহলে কোন কারণে কোন একটি কি হারিয়ে ফেললেও যাতে অন্য কি ব্যবহার করে আপনার ফান্ড লেনদেন করতে পারেন।

মনে করুন, আপনি ৩টি মাল্টিসিঙ্গনেচার কি দিয়ে একটি ওয়ালেট তৈরি করলেনে। যেখানে আপনি সেটিংস হিসেবে সেট করেছেন, যেকোন ২টি মাল্টিসিঙ্গনেচার কি দিয়ে আপনি আপনার ফান্ড ব্যবহার করতে পারবেন। এখন এই ৩টি “কি” এর মধ্যে কোন একটি “কি” হারিয়ে গেলেও আপনি অপর দুইটি কি দিয়ে আপনার ফান্ড ব্যবহার করতে পারবেন।

এইভাবে আপনি ৪, ৫, ৬ ইত্যাদি মাল্টিসিঙ্গনেচার কি সেট করতে পারেন। যার ৪টির মধ্যে ৩টি কি, ৫টির মধ্যে ৩টি কি, ৬টির মধ্যে ৪টি কি ব্যবহার করার অপশন তৈরি করতে পারেন।

আপনি যদি ৫টি মাল্টিসিঙ্গনেচার কি সেট করে যেকান ৩টি কি দিয়ে ওয়ালেট ব্যবহারে পদ্ধতি তৈরি করেন। তবে ৫টি মাল্টিসিঙ্গনেচারের যেকোন ৩টি কি ব্যবহার করে আপনার ফান্ড ব্যবহার করতে পারবেন।

কাদের জন্য এই মাল্টিসিঙ্গনেচার কি ওয়ালেট?

মাল্টিসিঙ্গনেচার ওয়ালেট যেকেউ ব্যবহার করতে পারে। তবে সাধারনত এই ধরনের ওয়ালেট একাধিক ইউজার সংবলিত কর্তৃত্ব থাকে অর্থাৎ ব্যবসায়ীক প্রতিষ্টান গুলো ব্যবহার করে থাকে।

মোটামুটি এই ছিলো মাল্টিসিঙ্গনেচার কি ওয়ালেট নিয়ে আলোচনা। তবে একটি বিষয়, আপনার যদি মাল্টিসিঙ্গনেচার ওয়ালেট কিভাবে ব্যবহার করতে হয় তা জানা না থাকে তবে এটি ব্যবহার থেকে বিরত থাকুন। আশা করি সামনের দিনে মাল্টিসিঙ্গনেচার ওয়ালেট কেমন করে তৈরি করবেন এবং তা দিয়ে লেনদেন করবেন তা নিয়ে আলোচনা করবো।

ক্রিপ্টোকারেন্সি নিয়ে অন্য যেকোন ধরনের আলোচনা করার জন্য বাংলাদেশ ক্রিপ্টো কমিউনিটিতে যোগ হয়ে থাকতে পারেন: https://t.me/Bangla_Cryptocurrency

সতর্কতাঃ- ফরেক্স ও ক্রিপ্টোকারেন্সি মার্কেট অধিক ভলটালিটির কারনে ট্রেডিং করা অনেক বেশি বিপদজনক। তাই এই পোষ্টে কাউকে এই মার্কেটে ট্রেড করার জন্য উৎসাহিত করা হচ্ছে না। যদি কেউ ট্রেড করতে চাই, তবে তা সে নিজের দায়িত্বে করবে, এর জন্য এই ব্লগের কর্তৃপক্ষ দায়বদ্ধ থাকবে না।

মন্তব্য