P2P ট্রেডিং গাইড

ইতি মধ্যেই অনেকেই অবগত হয়েছেন যে, বাংলাদেশীদের জন্য নাম করা দুইটি ক্রিপ্টোকারেন্সি এক্সচেন্জ P2P ট্রেডিং চালু করেছে। একটি হচ্ছে কুকয়েন এবং অপরটি হচ্ছে বাইন্যান্স

সর্বপ্রথম কুকয়েন ২৩/১০/২০২০ তারিখে এবং তার কিছুদিন পর অর্থাৎ ১৯/১১/২০২০ তারিখ বাইন্যান্স P2P ট্রেডিং সার্ভিস চালু করে বাংলাদেশিদের জন্য।

এই P2P ট্রেডিং সার্ভিস পদ্ধতি ব্যবহার করে সকল বাংলাদেশী সরাসরি BDT অর্থাৎ বাংলাদেশি টাকা দিয়ে USDT ক্রয় করতে পারবেন। এবং সেই USDT দিয়ে যেকোন ক্রিপ্টোকারেন্সি উক্ত এক্সচেন্জ থেকে ক্রয় করতে পারবেন।

binance_ref_banner

P2P ট্রেডিং কি?

অনেকের কাছে P2P ট্রেডিং কি তা নিয়ে বেশ সংশয় বা প্রশ্ন রয়েছে। বিশেষত বেশ কিছু রিকুয়েষ্টের পরিপ্রেক্ষিতে এই বিষয়ে নিয়ে লিখা।

আমরা যারা অনলাইনে কাজ করে কিছু আয় করি, তাদের মধ্যে কেউ কেউ ব্যাংক দিয়ে পেমেন্ট নেওয়ার পরিবর্তে লোকাল্লি অন্য ব্যক্তিদের কাছে তাদের ডলার বিক্রি করে দেন। এর বেশ কিছু কারণ আছে যেমন, সকল পেমেন্ট ম্যথড গুলো বাংলাদেশ ব্যাংক উইথড্র সাপোর্ট করে না। আবার অল্প ডলার হওয়ার কারণে ব্যাংকে উইথড্র দিতে চান না।

কারণ ব্যাংকে উইথড্র দিতে গিয়ে কিছু কিছু পেমেন্ট ম্যাথড গুলো এতো ফি কাটে যার কারণে উইথড্র দেওয়ার কথা ভাবাই যায় না।

যাইহোক, যে যার কারণেই হোক না কেন, কিছু কিছু ব্যাক্ত ব্যাংক উইথড্র না দিয়ে কোন ফেসবুক গ্রুপে বা বাইসেলের কিছু গ্রুপে গিয়ে বাই সেল করার চেষ্টা করেন। আর এই পদ্ধতিকেই P2P ট্রেডিং বলা হয়। যার বাংলা শব্দ গত অর্থ হচ্ছে ব্যক্তি টু ব্যক্তি।

তবে আমরা যেভাবে P2P ট্রেডিং করি ফেসবুক বা যেকোন বাইসেল গ্রুপে গিয়ে সেখানে অনেকেই প্রতারনার স্বীকার হোন। কারন আপনি যার সাথে বাই সেল করছেন সেই ব্যক্তি আপনাকে প্রতারিত করবেন না এমন কোন গ্যারেন্টি নেই। যার ফলে এই ধরনের লেনদেন করার জন্য অনেকেই এ্যডমিন ডিল করেন। তবে সেখানেও কোন কোন সময় প্রতারিত হতে হয়।

এক্সচেন্জ গুলোতে P2P ট্রেডিংকে অনেকটাই এ্যডমিন ডিলের সাথে তুলনা করা যায়। তবে এখানে প্রতারিত হওয়ার কোন সুযোগ নেই।

আশা করি P2P ট্রেডিং কি তা, এতক্ষনে বুঝে নিয়েছেন।

চলুন দেখি কিভাবে P2P ট্রেডিং করবেন। আমি আপতত: একটি এক্সচেন্জ নিয়ে উদাহরন দিব। কারন উভয় এক্সচেন্জেই একই নিয়মে এই ট্রেড করতে পারবেন। হয়তো এক্সচেন্জ ভেদে পেমেন্ট ম্যথডগুলো (মোবাইল ব্যাংকিং, ব্যাংক ইত্যাদি) ভিন্ন হতে পারে।

আমি এখানে বাইন্যান্স এক্সচেন্জ দিয়ে উদাহরন দিচ্ছি।

P2P ট্রেডিং পদ্ধতি

P2P ট্রেডিং করার জন্য প্রথমে আপনার বাইন্যান্সে একটি ভ্যরিফাইড একাউন্ট থাকতে হবে। কুকয়েনে এ্যড প্রদানকারীদের উপর নির্ভর করে যে, আপনি ভ্যরিফাইড একাউন্ট ছাড়া বাই/সেল করতে পারবেন কি না। তবে বাইন্যান্সে ভ্যরিফাইড একাউন্ট হওয়া আবশ্যক।

আপনার বাইন্যান্স বা কুকয়েনে একাউন্ট না থাকলে এখান থেকে বাইন্যান্স এবং এখান থেকে কুকয়েনে একটি একাউন্ট করে নিতে পারেন।

বাইন্যান্সে লগনি করার পরে Buy Crypto >> P2P Trading অপশনটিতে ক্লিক করুন।

P2P ট্রেডিং পদ্ধতি

P2P Trading ক্লিক দেওয়ার পর নিচের স্ক্রিনশটের মতো P2P Trading ইন্টারফেস হাজির হবে।

এখানে কিছু অপশন গুলো আগে জেনে রাখি।

P2P ট্রেডিং ইন্টারফেস

আপনি যদি USDT বাই করতে চান তবে I Want to Buy অপশনটি বাছাই করবেন আর আপনি সেল করতে চাইলে I Want to Sell অপশনটি বাছাই করবেন।

বাংলাদেশিদের জন্য যেহেতু শুধু মাত্র USDT পেয়ার চালু হয়েছে তাই USDT অপশনটি বাছাই থাকবে। যা সরাসরি I Want to Buy এর নিচেই দেখতে পাবেন। যদিও ডিফল্ট ভাবে USDT বাছাই হয়েয় থাকে।

এরপর Fiat অপশন থেকে (লাল কালি দিয়ে টিক দেওয়া আছে) BDT বাছাই করবেন। এর ফলে শুধু মাত্র বাংলাদেশি বাই/সেল পোষ্ট গুলো দেখাবে। অর্থাৎ বাংলাদেশি টাকা দিয়ে USDT বাই বা সেল করার বিজ্ঞাপন গুলো দেখতে পাবেন।

My ads– আপনি যদি নিজে কোন বাই/সেল এ্যড পোষ্ট করে থাকেন তবে এখান থেকে দেখতে পাবেন।

Orders– আপনি কোন ওর্ডার করে থাকলে যেমন আপনি বাই বা সেল করে থাকলে সেই ওর্ডার গুলো (পেন্ডিং বা কম্পিলিট) এখানে দেখতে পাবেন।

More– এখান থেকে আপনি আপনার পেমেন্ট ম্যথড সেট করার জন্য পেমেন্ট সেটিংস পাবেন এছাড়া এ্যড দেওয়ার জন্য পোষ্ট নিউ এ্যডের অপশন পাবেন।

আরো পড়ুন: কয়েন বার্ন কি?

পেমেন্ট সেটিংস

আপনি কোন ওর্ডার করার পূর্বে পেমেন্ট সেটিংসটি ঠিক করে নিবেন। কারন আপনি যখন আপনার ডলার সেল করতে যাবেন তখন পেমেন্ট কিসে নিবেন তা ঠিক করে দিতে হবে।

তবে যদি ডলার বাই করতে চান তবে তার প্রয়োজন নেই। আমার মতে সেট করে রাখা মন্দ নই। তাই চলুন জেনে রাখি কিভাবে পেমেন্ট সেটিংস থেকে পেমেন্ট অপশন ঠিক করে রাখবেন।

এর জন্য More থেকে Payment Settings -এ ক্লিক করুন। এর পরে যে পেজ আসবে সেখানে Add payment method নামে একটি বাটন দেখতে পাবেন।

payment-settings

বাংলাদেশিদের জন্য দুইটি অপশন বাছাই করে বাংলাদেশি টাকাতে পেমেন্ট নিতে পারবেন। এর একটি হচ্ছে Bank Tranfer এবং অপরটি হচ্ছে Mobile top-up

তাই Add payment method এ ক্লিক দেওয়ার পর যে পপ-আপ উইন্ডো আসবে সেখান থেকে এই দুইটি বাছায় করবেন। তবে একসাথে বাছায় করতে পারবেন না। প্রথম একটি বাছাই করে তার তথ্য গুলো পুরোন করে অপর আরেকটি বাছাই করতে পারবেন।

payment-select

যেমন ধরুন আমি এখানে Mobile top-up বাছাই করলাম প্রথমে।

এখন নিচের Mobile Carrier এ আপনি এই ভাবে লিখে দিতে পারেন তাহলে আপনার ক্লাইন্ট খুব সহজেই বুঝতে পারবেন আপনার মোবাইলে কোন কোন ব্যাংকিং সুবিধা আছে।

আর Phone number এর ঘরে শুধু আপনার ফোন নাম্বার লিখে দিলেই হবে।

ঠিক একই পদ্ধতিতে আপনি আপনার মোবাইল ব্যাংকিং এ্যড করার মতো ব্যাংকও এ্যড করতে পারেন।

ওর্ডার করার পদ্ধতি

বাই/সেল ওর্ডার করার পদ্ধতি একই। যেমনটা আগেই বলেছি আপনি যদি সেল করতে চান তবে সেখানে কিসে পেমেন্ট নিবেন তা বাছাই করে দিতে হবে। এছাড়া আর কোন ভিন্নতা নেই।

তো চলুন আমরা একটি সেল ওর্ডার করে ওর্ডার পদ্ধতি বোঝার চেষ্টা করি।

এর জন্য প্রথমে I want to sell অপশনে ক্লিক দিন। আর নিশ্চিত হবেন যে, আপনার Fiat অপশনে BDT বাছায় হয়ে আছে কি না। যদি না থাকে তবে BDT করে নিবেন।

সব ঠিকঠাক থাকলে আপনি নিচের মত বেশ কিছু বিজ্ঞাপন দেখতে পাবেন। সেখান থেকে আপনার পছন্দ মত যেকোন একটি ওর্ডার এর Sell USDT বাটনে ক্লিক করুন।

p2p ট্রেডিং ওর্ডার

যেমন আমি একটি বিজ্ঞাপন থেকে Sell USDT তে ক্লিক দেওয়ার পরে নিচের স্ক্রিনশটের মত দেখাচ্ছে।

এখান ২ দ্বারা যে জায়াগ চিহ্ন করা আছে সেখানে দেখাচ্ছে বায়ার কোন কোন পেমেন্ট ম্যথডের মাধ্যমে আপনাকে পে করবে। এখানে বায়ার ব্যাংক এবং মোবাইল টপআপ দুইটি অপশন দিয়েছেন পেমেন্ট করার জন্য। অর্থাৎ আমি এই বায়ারের কাছে আমার USDT সেল করে ব্যাংক বা মোবাইল টপআপের যেকোন একটিতে পেমেন্ট নিতে পারবো।

sell-order

৩নং বক্সে আপনি কত ডলার সেল করবেন তা দিবেন। তবে তার আগে দেখে নিবেন I will receive এর বক্সে একটি লিমিট ওর্ডার হিন্ট দেওয়া আছে। যেমন উপরের ছবিতে দেখা যাচ্ছে ১২০০ টাকা থেকে ১২০,০০০ হাজার টাকার মধ্যে যেকোন ওর্ডার করতে পারবেন।

অর্থাৎ আপনি যে ডলার সেল করবেন তার রেট অনুযায়ী টাকার হিসেবে ১২০০ টাকার উপর এবং ১২০,০০০ টাকার মধ্যে ওর্ডার দিতে হবে।

৫নং অপশন থেকে আপনি কিসে পেমেন্ট নিবেন তা বাছায় করে দিবেন।

আমি এখানে এখন ৫০ ডলার সেল করতে চাইছি। তাই ৩নং ঘরে অর্থাৎ I want to sell এর ঘরে ৫০ লিখে এবং পেমেন্ট ম্যথেড ব্যাংক বাছাই করে Sell USDT তে ক্লিক দিব।

order-placed

আমি ওর্ডারটি প্লেসড করার পরে উপরের স্ক্রিনশটের মতো দেখাবে। এখানে আপনি বায়ারের সাথে চ্যাট করতে পারবেন।

বায়ার আপনাকে পেমেন্ট করার পর সে তার অপশন থেকে পেমেন্ট কনফার্ম বাটনে ক্লিক করলে আপনার এখানে Confirm release বাটনটি একটিভ হবে। যা বর্তমানে ইনএকটিভ দেখাচ্ছে।

এখন এখানে একটি বিষয় কেও যদি পেমেন্ট না করেই সে তার অপশন থেকে পেমেন্ট কনফার্ম বাটনে ক্লিক দেয় এবং আপনি আপনার পেমেন্ট না পেয়ে থাকেন তবে Confirm release বাটনের পাশে Appeal বাটনটিও একটিভ থাকবে। আপনি পেমেন্ট না পেয়ে থাকলে আপনি Appeal বাটনে ক্লিক দিবেন।

এতে করে বাইন্যান্স সাপোর্ট বায়ারের সাথে এবং প্রয়োজনে আপনার সাথে কথা বলবে। বায়ার তার পেমেন্টের সত্যতা প্রমান না করতে পারলে আপনার ওর্ডারটি ক্যানসিল করে দিবে।

এখানে উল্লেক্ষ যে, আপনি আপনার USDT যে পরিমান সেল করার জন্য ওর্ডার দিবেন তা লক হয়ে যাবে। ওর্ডারটি সম্পূর্ণ বা বাতিল না হওয়া পর্যন্ত।

আপনি খেয়াল করলে দেখতে পাবেন যে, উপরের স্ক্রিনশটটিতে Payment to be made by buyer এর পাশে সময় কাউন্ট হচ্ছে। সময়টির অর্থ হচ্ছে, এই সময়েরে মাধ্যে বায়ার আপনার ওর্ডারটি গ্রহন না করলে তা অটোমেটিক বাতিল হয়ে যাবে। এবং আপানার ওর্ডার করা ডলারটি অটোমেটিক আনলক হয়ে যাবে।

আপনার ওর্ডারটি বায়ার গ্রহন করে আপনাকে পেমেন্ট করে থাকলে। আপনি আপনার পেমেন্ট পেয়েছেন কিনা তা যাচাই বাছাই করে Confirm release বাটনে ক্লিক করে ওর্ডারটি সম্পূর্ন করতে পারবেন।

ওর্ডার হিস্টোরি

আপনার সকল ওর্ডার হিস্টোরি অর্থাৎ পেন্ডিং, কম্পিলিট, বা ক্যানসিল ওর্ডার গুলো দেখতে Orders অপশনে ক্লিক দিয়ে দেখতে পাবেন।

order-history

যেমন উপরের স্কিনশটে দেখতে পাচ্ছেন আমার বর্তমান দুইটি ওর্ডার পেন্ডিং আছে আর একটি ওর্ডার সম্পূর্ণ হয়েছে।

ওর্ডার গুলোর অবস্থা দেখতে Detail অপশনে ক্লিক দিয়ে দেখতে পারবেন।

মোটামুটি এই ছিলো P2P ট্রেডিং গাইড নিয়ে আলোচনা।

আশা করি এর পরে P2P ট্রেডিং নিয়ে আর কোন সংশয় থাকবে না।

এছাড়া ক্রিপ্টোকারেন্সি নিয়ে অন্য যেকোন ধরনের আলোচনা করার জন্য বাংলাদেশ ক্রিপ্টো কমিউনিটিতে যোগ হয়ে থাকতে পারেন: https://t.me/Bangla_Cryptocurrency

আর বাইন্যান্স সম্পর্কিত আলোচনার জন্য আমাদের বাংলাদেশ বাইন্যান্স কমিউনিটিতে যোগ হতে পারেন: https://t.me/BinanceBangladeshi

সতর্কতাঃ- ফরেক্স ও ক্রিপ্টোকারেন্সি মার্কেট অধিক ভলটালিটির কারনে ট্রেডিং করা অনেক বেশি বিপদজনক। তাই এই পোষ্টে কাউকে এই মার্কেটে ট্রেড করার জন্য উৎসাহিত করা হচ্ছে না। যদি কেউ ট্রেড করতে চাই, তবে তা সে নিজের দায়িত্বে করবে, এর জন্য এই ব্লগের কর্তৃপক্ষ দায়বদ্ধ থাকবে না।

মন্তব্য